-->

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই, সংশোধন ও অনলাইন কপি ডাউনলোড

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই

জন্ম নিবন্ধন খুবই গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়, প্রত্যেক গুরুত্বপুর্ন কাজে ও সেবা পেতে জন্ম সনদের (Birth Certificate) দরকার লাগে। আজকে তাই আমরা জন্ম নিবন্ধন যাচাই, জন্ম নিবন্ধন সংশোধন ও জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করবেন সে বিষয়ে আলোচনা করবো।

জন্ম নিবন্ধন ও জন্ম সনদ

সহজ কথায় বলে গেলে, একটি শিশু জন্মের পর সরকারি ডাটাবেজে নাম ও জন্ম সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য যুক্ত করাকেই বলা যায় জন্ম নিবন্ধন। আর জন্ম সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য থাকে যে সনদে, তাকে বলা হয় জন্ম সনদ বা Birth Certificate। মূলত জাতীয় পরিচয় পত্র পাওয়ার আগে এটিকেই প্রাথমিক পরিচয়ের সনদ বলা যায়।

উইকি পিডিয়া অনুসারে,

জন্ম নিবন্ধন হলো জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন, ২০০৪ (২০০৪ সনের ২৯ নং আইন) এর আওতায় একজন মানুষের নাম, লিঙ্গ, জন্মের তারিখ ও স্থান, বাবা-মায়ের নাম, তাদের জাতীয়তা এবং স্থায়ী ঠিকানা নির্ধারিত নিবন্ধক কর্তৃক রেজিস্টারে লেখা বা কম্পিউটারে এন্ট্রি প্রদান এবং জন্ম সনদ প্রদান করা।

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই ও জন্ম সনদ অনলাইন কপি ডাউনলোড

আপনি যদি জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করে ফেলেন তবে অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন ও যাচাই করতে পারবেন। আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধনে দেওয়া তথ্যগুলো যাচাই করতে পারবেন, সত্যতা নিশ্চিত করতে পারবেন।

এজন্য বাংলাদেশ সরকারের এ বিষয়ক ওয়েবসাইট অনলাইন জন্ম নিবন্ধন তথ্য ব্যবস্থা বা Online BRIS ওয়েবসাইটতে ব্রাউজ করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড ও যাচাই করার নিয়ম

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন তথ্য ব্যবস্থা বা Online BRIS ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করতে প্রথমেই আপনার ব্রাউজারে গিয়ে সার্চ করুন Online BRIS অথবা সরাসরি এখানে ক্লিক করুন।

ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশের পর এরকম একটি ইন্টারফেস দেখতে পাবেন

জন্ম নিবন্ধন যাচাই ওয়েবসাইট

  • জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে প্রথম খালি বক্সে যার জন্ম নিবন্ধন তথ্য যাচাই করতে চান, তার জন্ম নিবন্ধন সনদ এ থাকা ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নাম্বারটি ইনপুট করুন
  • এরপর দ্বিতীয় বক্সে যার জন্ম নিবন্ধন তথ্য যাচাই করতে চান, তার জন্ম নিবন্ধন সনদ এ থাকা জন্ম তারিখ ইনপুট করুন
  • কারো জন্ম তারিখ যদি ১৯৯০ সালের জানুয়ারীর ১ তারিখ হয়, তবে দ্বিতীয় বক্সটিতে 1990-01-01 এভাবে লিখতে হবে
  • দুইটি বক্সেই সঠিক তথ্য ইনপুট করা হয়ে গেলে Verify বাটনে ক্লিক করুন
  • Verify বাটনে ক্লিক করার পর যার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে চান, তার জন্ম নিবন্ধনে থাকা তথ্যগুলো স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে
  • প্রদর্শিত তথ্যগুলো সঠিক কিনা তা যাচাই করে নিন

যদি Verify বাটনে ক্লিক করার পর Matching Birth Records Not Found লেখা আসে, তবে বুঝবেন উল্লিখিত বক্সে দুইটিতে প্রদত্ত জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বা জন্ম তারিখ – যেকোনো একটিতে ভূল হয়েছে।

উল্লেখিত পদ্ধতি সঠিকভাবে অনুসরণ করে থাকলে প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী যার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে চেয়েছিলেন, তার জন্ম নিবন্ধন এর তথ্য পেয়ে যাবেন। জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত তথ্যসমুহ স্ক্রিনে দেখার পর তা সঠিক কিনা তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন

জন্ম নিবন্ধনে অনেক সময় ভুল আসে, যার কারণে পরবর্তীতে জটিলতা দেখা যায়। জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য “জন্ম তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন” শিরোনামের একটি ওয়েবসাইট রয়েছে। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে এখানে ক্লিক করুন। জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের ওয়েবসাইটে প্রবেশের পর দুইটি খালি বক্স দেখতে পাবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন ওয়েবসাইট
জন্ম নিবন্ধন সংশোধন ওয়েবসাইট

প্রথম বক্সে জন্ম সনদে থাকা জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও দ্বিতীয় বক্সে জন্ম সনদে থাকা জন্ম তারিখ ইনপুট করুন। সঠিক জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও জন্ম তারিখ প্রদান করতে সার্ভারে থাকা জন্ম সনদ সম্পর্কিত তথ্য দেখতে পাবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর উল্লিখিত ওয়েবসাইটে সঠিক তথ্য দেওয়ার পর জন্ম নিবন্ধন সংশোধন সম্পর্কিত তথ্য স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে। প্রদত্ত তথ্য অনুসরণ করে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর আবেদন করতে পারবেন।

জন্ম তথ্য সংশোধনের শর্ত ও নিয়মাবলি

জন্ম সনদে থাকা তথ্যতে ভূল থাকলে জন্ম সনদ সংশোধন করার প্রয়োজন হয়। জন্ম তথ্য সংশোধনের করার ক্ষেত্রে কিছু শর্ত ও নিয়মাবলি প্রযোজ্য। যেমনঃ

১. যদি পিতা বা মাতার নাম সংশোধন করার প্রয়োজন পড়ে, সেক্ষেত্রে পিতা বা মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর থাকলে প্রথমে তাদের জন্ম নিবন্ধন নম্বর দিয়ে জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন এর আবেদন করে তাদের নাম সংশোধন করতে হবে

২. পিতা বা মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর না থাকলে এবং জন্ম তারিখ ০১/০১/২০০০ এর পূর্বে হলে, জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন করার সময় আপনার পিতা বা মাতার নাম সংশোধন করা যাবে। সেক্ষেত্রে পিতা বা মাতা মৃত হলেও তাদের মৃত্যুর কোন প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে না

৩. পিতা বা মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর না থাকলে এবং পিতা বা মাতা মৃত হলে এবং জন্ম তারিখ ০১/০১/২০০ এর পরে হলে, জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন করার সময় পিতা বা মাতার নাম সংশোধন করা যাবে। সেক্ষেত্রে পিতা বা মাতার মৃত্যুর প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন

আপনি যদি নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে চান, তবে অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে এখানে ক্লিক করুন। ওয়েবসাইটে প্রবেশ করলে নিচের ছবির মতো একটা ইন্টারফেস দেখতে পারবেন।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ওয়েবসাইট
অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ওয়েবসাইট

জন্ম নিবন্ধন সনদ আপনার কোন ঠিকানার অফিস থেকে সংগ্রহ করতে চান, তা নির্বাচন করুন। জন্মস্থান, স্থায়ী ঠিকানা বা বর্তমান ঠিকানা থেকে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করা যাবে। পরবর্তী ধাপে প্রদর্শিত পেজে দেওয়া সকল তথ্য সাবধানতার সহিত সঠিকভাবে পূরণ করুন। এভাবে অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করা যাবে।

জন্ম নিবন্ধন করতে কি কি লাগে?

জন্ম সনদ আবেদন ও প্রাপ্তির ক্ষেত্রে কিছু দরকারি কাগজপত্র প্রয়োজন হয়। জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে হাসপাতাল বা ক্লিনিকে জন্মগ্রহণ করে থাকলে সেখান থেকে প্রদত্ত সার্টিফিকেট বা ছাড়পত্র ব্যবহার করে জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করা যাবে।

তাছাড়া পাবলিক পরীক্ষা এস.এস.সি, দাখিল সার্টিফিকেট ফটোকপি, পাসপোর্টের ফটোকপি, ন্যাশনাল আইডি কার্ডের ফটোকপি বা এলাকার জনপ্রতিনিধি, যেমন- ওয়ার্ড কমিশনার, ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভার চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিকত্ব সনদ এর ফটোকপি ব্যবহার করেও জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করা যায়।

এক্ষেত্রে নতুন যারা জন্ম নিবন্ধন করবে তাদের বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন লাগবে। এজন্য বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন না থাকলে আগে তাদের নিবন্ধন করে নিতে হবে।

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদন সম্পর্কিত নির্দেশনাঃ

জন্ম নিবন্ধন আবেদন সম্পর্কিত নিচের নির্দেশনাগুলো ফলো করুন-

  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম প্রথমে বাংলায় (ইউনিকোড) ও পরবর্তীতে ইংরেজিতে পূরণের পর প্রয়োজনীয় সম্পাদনা করে সংরক্ষণ বাটনে ক্লিক করুন
  • সংরক্ষণ বাটনে ক্লিক করলেই আবেদন পত্রটি সংশ্লিষ্ট নিবন্ধক কার্যালয়ে স্থানান্তিরত হয়ে যাবে, আবেদনকারীর আর কোন সংশোধনের সুযোগ থাকবে না
  • পরবর্তী ধাপে প্রিন্ট বাটনে ক্লিক করলে আবেদন পত্রের মুদ্রিত কপি পাবেন

সনদের জন্য ১৫ দিনের মধ্যে উক্ত আবেদন পত্রে নির্দেশিত প্রত্যয়ন সংগ্রহ করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্রের সত্যায়িত কপিসহ নিবন্ধক অফিসে যোগাযোগ করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা জানার ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করতে এখানে ক্লিক করুন। অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমানে অবস্থা জানতে ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করে আবেদনের সময় প্রাপ্ত অ্যাপ্লিকেশন আইডি ও জন্মতারিখ প্রদান করে “দেখুন” চাপলে জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা জানতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড

আপনার জন্ম নিবন্ধন রেজিস্টার হয়ে গেলে অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন। জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড pdf আকারে ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন ফরম কোথায় পাওয়া যাবে

সংশ্লিষ্ট নিবন্ধকের কার্যালয়ে বা br.lgd.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে জন্ম নিবন্ধন ফরম ডাউনলোড করা যাবে। জন্ম নিবন্ধন ফরম ডাউনলোড pdf আকারে ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন ফি

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ক্ষেত্রে কিছু নির্দিষ্ট ফি প্রযোজ্য। জন্ম নিবন্ধন ফি সমুহ নিম্নরুপঃ

বিষয়  ফি 
জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিন পর্যন্ত কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন ফ্রি
জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিন পর হইতে ৫ (পাঁচ) বৎসর পর্যন্ত কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন (সাকুল্যে) ২৫/-
জন্ম বা মৃত্যুর ৫ (পাঁচ) বৎসর পর কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন (সাকুল্যে) ৫০/-
জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য আবেদন ফি ১০০/-
জন্ম তারিখ ব্যতীত নাম, পিতার নাম, মাতার নাম, ঠিকানা ইত্যাদি অন্যান্য তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন ফি ৫০/-
বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় মূল সনদ বা তথ্য সংশোধনের পর সনদের কপি সরবরাহ ফ্রি
বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় সনদের নকল সরবরাহ ৫০/-

জন্ম নিবন্ধন কি কি কাজে লাগে?

আর্টিকেলের শুরুতেই বলেছি এটা খুবই গুরুত্বপূর্ন বিষয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি থেকে শুরু করে চাকরি, বিয়ে সব ক্ষেত্রে এই জন্ম সনদ লাগে। সরকারি কোনো সেবা পেতে হলে অবশ্যই এটি খুবই প্রয়োজনীয়। তাই জন্ম নিবন্ধন করে নেওয়া খুবই দরকার।

জন্ম নিবন্ধনের অনেক জায়গায় প্রয়োজন পড়ে, নিচে কয়েকটি বিষয় উল্লেখ করা হলো:

  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি
  • জাতীয় পরিচয়পত্র এনআইডি
  • ভোটার তালিকা প্রণয়ন
  • পাসপোর্ট ও ভিসা প্রাপ্তি
  • বিয়ে রেজিস্ট্রেশন
  • জমি রেজিস্ট্রেশন
  • গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স
  • ট্রেড লাইসেন্স
  • ঠিকাদারি লাইসেন্স
  • আমদানী ও রপ্তানি লাইসেন্স
  • ব্যাংক একাউন্ট খোলা
  • সরকারি, বেসরকারি চাকরি
  • গ্যাস, পানি, টেলিফোন ও বিদ্যুৎ সংযোগ
  • TIN বা ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার প্রাপ্তি

এছাড়াও আরো অনেক কিছুতেই জন্ম নিবন্ধন সনদের প্রয়োজন পড়ে।

শেষ কথা

এই ছিলো মূলত অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন যাচাই, সংশোধন ও নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন নিয়ে পূর্ণাঙ্গ একটি আর্টিকেল। আশা করি প্রত্যেকটি বিষয় খুবই ভালো করে আলোচনা করা হয়েছে ও আপনারা বুঝতে পেরেছেন। তবুও জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত কোনো কিছু জানার থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করবেন।